Indian Prime Time
True News only ....

পার্থ ঘনিষ্ঠ অর্পিতা টাকার উৎসের কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি

- sponsored -

- sponsored -

- Sponsored -

- Sponsored -

চয়ন রায়ঃ কলকাতাঃ রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী তথা তৃণমূলের মহাসচীব পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে ইডি (এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট) গ্রেফতার করার পাশাপাশি পার্থ ঘনিষ্ঠ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কেও গ্রেফতার করে। কারণ গতকাল অর্পিতার দক্ষিণ কলকাতার অভিজাত আবাসন থেকে আপাতত ২১ কোটি টাকা ২০ লক্ষ সহ ৭৯ লক্ষ টাকার সোনার গহনা উদ্ধার হয়েছে।

ইডি সূত্রে জানা গেছে, এই টাকার উৎস কোথা থেকে? সে বিষয়ে কোনো সঠিক উত্তর দিতে পারেননি। কিন্তু অর্পিতা নিজে দাবী করেন, তিনি এক জন অভিনেত্রী। অভিনয় করেই এই যাবতীয় আয়। নিজের বিভিন্ন নেটমাধ্যমের অ্যাকাউন্টেও নিজেকে অভিনেত্রী হিসেবেই দাবি করেছেন।’’

অর্পিতার গ্রেফতাররত মা জানান, ‘‘২০০৫ সালে মডেলিং দিয়ে বিনোদন জগতে হাতেখড়ি হয়। মডেলিং জীবনে কিছু বি়জ্ঞাপনে কাজ করছেন। টুকটাক অভিনয়ও করেছেন। প্রসেনজিৎ অভিনীত ‘মামা ভাগ্নে’ ও জিৎ অভিনীত ‘পার্টনার’এর মতো বাংলা সিনেমাতেও অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে। এছাড়া ওড়িশা এবং তামিলের বেশ কিছু সিনেমাতেও অভিনয় করেছেন।

পাশাপাশি প্রযোজনা ও নেল আর্টের সাথেও যুক্ত ছিলেন।’’ অর্পিতাকে নাকতলা উদয়ন সঙ্ঘের পুজোর বিজ্ঞাপনেও দেখা গিয়েছে। দীর্ঘ দিন তিনি নাকি নাকতলা উদয়ন সঙ্ঘের অন্যতম মুখ ছিলেন। তাছাড়া কলকাতার এই পুজোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেও দেখা গিয়েছে। আবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সাথে ভোট প্রচারেও নেমেছেন।  

- Sponsored -

- Sponsored -

এরপর একই গাড়িতে চেপে জনগণের উদ্দেশ্যে অর্পিতা হাত নাড়ানোর ছবি ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে। এমনকি প্রধান অতিথি হিসাবে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সাথে অর্পিতাকে বহু অনুষ্ঠানেও দেখা গিয়েছে। প্রসঙ্গত, পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে হানা দিয়েই তার নাম উঠে আসে।

তারপর বাড়িতে হানা দিয়ে সাতটি টাকা গোনার মেশিনের সাহায্যে এখনো অবধি ২১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা, ২০ টি মোবাইল, ৭৯ লক্ষ টাকার সোনার গহনা, ৫৪ লক্ষ টাকার বৈদেশিক মুদ্রা, অ্যাডমিট কার্ড এবং সরকারী লোগো দেওয়া খাম উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়াও অর্পিতার বেলঘরিয়ার রথতলা এলাকায় একটি অভিজাত আবাসনে দু’টি আবাসনের কথা জানা যায়।  

সেখানকার আবাসিকরা বলেন, কয়েক মাস আগেও অর্পিতাকে ওই আবাসনে নিয়মিত দেখা যেত। আবাসনে লালবাতির গাড়ি চড়ে মাঝেমধ্যে কেউ কেউ আসতেন। তবে কার কাছে আসতেন তা এখনো পর্যন্ত স্পষ্ট ভাবে জানা যায়নি। কিন্তু ওই আবাসনে কে আসছে-যাচ্ছে, তা রেজিস্টারে দেখলেই জানা যাবে।

এর সাথে সাথে তার বেলঘরিয়ার দেওয়ানপাড়াতে আবদুল লতিফ স্ট্রিটেও একটি বাড়ি রয়েছে যাখানে অর্পিতার মা এবং অন্যান্য আত্মীয়রা থাকেন। তবে সত্যিই কি মডেলিং ও অভিনয় করে এতো বিপুল টাকা উপার্জন করা যায়? তা নিয়ে সত্যি রহস্য দানা বাঁধছে। 

- Sponsored -

- Sponsored -

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

- Sponsored -

- Sponsored -

- Sponsored

- Sponsored