Indian Prime Time
True News only ....

‘মহব্বত কাম সে হোতা হ্যায় মোদিজী, মন কি বাত কহেনে সে নেহি’ কটাক্ষের সুরে জানান মুখ্যমন্ত্রী

- sponsored -

- sponsored -

- Sponsored -

- Sponsored -

ADVERTISMENT

ADVERTISMENT

চয়ন রায়ঃ কলকাতাঃ আজ ২১ শে জুলাই শহিদ দিবস। এই দিন বরাবরই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ব্রিগেডে সমাবেশ করে থাকেন। কিন্তু গত বছর থেকে করোনা পরিস্থিতির জেরে ভার্চুয়ালি সমাবেশ করা হচ্ছে। আজ গুজরাট মডেলের প্রসঙ্গ তুলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, “বাংলার বিধানসভা নির্বাচনের সময়ে বিজেপি নেতৃত্ব নির্বাচনী প্রচারে এসে বাংলার উন্নয়ন নিয়ে গুজরাট মডেল থেকে শুরু করে উত্তরপ্রদেশ মডেলের কথা বলেছে। কিন্তু গুজরাট মডেল নয়, বাংলার মডেল আদর্শ”।

এদিন যুক্তি দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “রাজ্য সরকারের কন্যাশ্রী প্রকল্প রাষ্ট্রপুঞ্জে পুরস্কৃত হয়েছে। কৃষকদের ১০ হাজার টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। কোনো কৃষকের মৃত্যু হলে মৃত কৃষকের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে জমির মিউটেশন সরকারই করে দিচ্ছে। এছাড়া বাংলায় দারিদ্র্যতা কমপক্ষে ৪০ শতাংশ কমে গিয়েছে।

অপর দিকে গোটা দেশজুড়ে অশান্তি ও হিংসার ছবি দেখা যাচ্ছে। তাই বাংলাই আদর্শ মডেল কোনো গুজরাট বা উত্তরপ্রদেশ নয়। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে খোঁচা দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরো বলেছেন, ”রোশনি চাঁদ সে হোতা হ্যায়, সিতারোঁ সে নহি, মহব্বত কাম সে হোতা হ্যায় মোদিজী, মন কি বাত কহেনে সে নেহি”।

- Sponsored -

- Sponsored -

এর সাথে সাথে হ্যাকিং এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে জানিয়েছেন যে, “আমাদের ফোন ট্যাপ করা হচ্ছে। শুধু ট্যাপ করাই নয় সমস্ত কিছু রেকর্ড করে নেওয়া হচ্ছে। পেগাসাস, ডেঞ্জারাস, ফেরোশাস। পেগাসাস পেগাসাস, মোদি সরকারের নাভিশ্বাস। এই পেগাসাস হলো গরীবদের টাকা দেওয়ার পরিবর্তে গোয়েন্দাগিরিতে প্রচুর টাকা খরচ করা। আমি একটা কাজ করেছি আপনাদের দেখাই। দেখুন আমি ক্যামেরাটা পুরো প্লাস্টার করে দিয়েছি। ফোন রেখে কি করব? ক্যামেরার মাধ্যমেও তো আড়ি পাতে। তাই আমি ক্যামেরাটাই সেলোটেপ দিয়ে প্লাস্টার করে দিয়েছি। আগামী দিনে ভারত সরকারকেও প্লাস্টার লাগাতে হবে। নয়তো দেশ ধ্বংস হয়ে যাবে।

তাই সব রাজ্যকে বলছি কড়া বিরোধীতা করুন। ছাত্র-যুবদের বলছি এগিয়ে এসে মোদি সরকারের বিরোধীতা করুন। করোনা ভাইরাসের থেকেও বড়ো ভাইরাস বিজেপি। বিজেপিতে গদ্দারদের জন্ম হয়। মানুষ একদিন সব গদ্দারদের বিদায় দেব। লড়ে যান, জয় আপনাদের হবেই। দলকে আরো সুনাম অর্জন করতে হবে। উন্নততর তৃণমূল তৈরী করুন। জেলায় নতুন-পুরনো কর্মী, মা-বোনেদের গুরুত্ব দিন। কোভিড মিটলে শীতকালে ব্রিগেডে বড়ো র‍্যালি। তখন শরদ পওয়ারদের আমন্ত্রণ জানানো হবে”।

আর দিল্লির মসনদকে নজরে রেখে পুনরায় বিজেপির দিকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে জানিয়ে দিয়েছেন, “লোকসভা ভোটের আর মাত্র আড়াই বছর বাকি। এর আগে ফ্রন্টকে আরো মজবুত করতে হবে। এছাড়া ২০২৪ সালে ফ্রন্ট ক্ষমতায় আসলে দেশের মানুষকে বিনামূল্যে রেশন দেওয়া হবে”।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

- Sponsored -

- Sponsored -

- Sponsored

- Sponsored